প্রচ্ছদ

ব্যর্থ হওয়ার আশঙ্কায় অক্সফোর্ডের করোনা ভ্যাকসিন

  |  ১৬:০৩, মে ১৯, ২০২০
www.adarshabarta.com

আদর্শবার্তা ডেস্ক:

করোনা ভাইরাস নিয়ে আশা জাগানো অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ভ্যাকসিনটি নিয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। কারণ প্রাণীদেহে ভ্যাকসিনটির সর্বশেষ পরীক্ষায় এর কোনো কার্যকারিতা দেখা যায়নি। বরং পরীক্ষায় অংশ নেওয়া সমস্ত বানর করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে বলা হয়, পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ছয়টি বানর। এদের মধ্যে তিনটির শরীরে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। কিন্তু সবগুলো বানরে ভাইরাস সংক্রমণ হয়।

হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের সাবেক অধ্যাপক ডা. উইলিয়াম হাসেলটাইন জানিয়েছেন, পরীক্ষায় কিছু বানরের দেহে ভাইরাস প্রবেশ করানোর পর ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। আর কিছু বানরকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়নি। কিন্তু উভয় ধরনের বানরের মধ্যে সমপরিমাণ ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

যে তিনটি বানরকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়, সেগুলো ভাইরাস সংক্রামিত হওয়ার পর স্বাভাবিকের চেয়ে আরো দ্রুত শ্বাস নিতে শুরু করে। উল্টো তারা অসুস্থ হয়ে পড়ে। তবে তাদের ফুসফুসের ক্ষতি হয়নি।

নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মলিকুলার বায়োলজির অধ্যাপক জন বল সতর্ক করে বলেন, ‘ভ্যাকসিন দেওয়া ও ভ্যাকসিন ছাড়া বানরগুলোর নাকের মধ্যে ভাইরাসের জিনোমের পরিমাণ একই ছিল।’

সিএইচএডিওএক্স-১ এনসিওভি-১৯ নামের এই ভ্যাকসিনটি এখন মানবদেহে পরীক্ষার প্রথম পর্যায়ে রয়েছে। তবে বানরের দেহে এটি কাজ না করায় আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক বলেন, ‘এই ভ্যাকসিনটি যদি মানুষের মধ্যে একই রকম ঘটনা ঘটায়, অর্থাৎ কাজ না করে, তাহলে টিকা দেওয়া লোকেরা সংক্রামিত হতে পারে। ভাইরাসটি অন্যান্য কমিউনিটিতেও ছড়িয়ে পড়তে পারে।’

গত মাস থেকে ভ্যাকসিনটি মানবদেহে পরীক্ষা শুরু করে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। এই ক্লিনিক্যাল পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন এক হাজারের বেশি মানুষ। তাদের মধ্যে অর্ধেককে এই টিকা দেওয়া হচ্ছে, বাকি অর্ধেককে দেওয়া হচ্ছে না।