প্রচ্ছদ

কানাইঘাটে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, বন্যার আশঙ্কা

  |  ১৭:০৯, জুন ২৬, ২০২০
www.adarshabarta.com

আদর্শবার্তা ডেস্ক :

টানা ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা তীব্র পাহাড়ি ঢলের কারণে সিলেটের কানাইঘাটে বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। শুক্রবার (২৬ জুন) রাত থেকে কানাইঘাটের সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৯৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে, এবং ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল অব্যাহত থাকায় প্রবল বন্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সুরমা, লোভাসহ অন্যান্য নদীর পানি ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। প্রবাহিত পানি বিপদ সীমার উপরে উঠায় নদী ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। গত কয়েকদিন আগে উপজেলার ২নং লক্ষ্মীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির কুওরঘড়ি মন্দিরের ঘাটের পাশে বাধ ভেঙ্গে প্রবল স্রোতে পানি প্রবেশ করতে থাকে। সকাল ৭টার দিকে ছোট সুড়ঙ্গ হয়ে পানি প্রবেশ করে ধীরে ধীরে বাধের আশপাশ ভেঙে পড়ে স্রোতের গতি বাড়তে থাকে। বাধ ভেঙে লোকালয়ে পানি প্রবেশের খবর পেয়ে জনসাধারণের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জেমস লিউ ফারগুসন নানকা বেড়িবাঁধে পৌঁছে উপস্থিত থেকে বাঁধ আটকানোর ব্যবস্থা করেন। বর্তমানে বাঁধের আশপাশ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। যেকোনো সময় আবারো অন্য কোন দিক দিয়ে পানি প্রবেশ করতে পারে।

অপরদিকে প্রবল পানির স্রোতের কারণে উপজেলার নিম্নাঞ্চলের কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। উপজেলার ৯ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ফসলের মাঠ বন্যার পানিতে প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা।

এদিকে বোরো ধান অনেক কৃষক কাটা অবস্থায় জমিতে আছে আবার কেউ কাটতেই পারেননি তাদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। অনেক কৃষক ক্ষেতের মধ্যে বিভিন্ন সবজি চাষ করেছেন। কিছুটা বিক্রি করলেও অনেক সবজি এখনও রয়ে গেছে। পানি বেড়ে অনেক ফসলি জমি ডুবে আছে।

বিভিন্ন এলাকায় গ্রামীণ রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। ইতিমধ্যে অনেক এলাকার বিদ্যালয়সহ অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. বারিউল করিম খান জানিয়েছেন, গতকাল রাত থেকে পানি বাড়ছে। বন্যার পরিস্থিতি তদারকি করা হচ্ছে। বন্যায় দুর্গত এলাকার ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি মাথায় রাখে তাদের সহায়তা করা হবে এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দরা সর্বদা মনিটরিং করবেন বন্যা পরিস্থিতি।