প্রচ্ছদ

কানাইঘাটে এবাদ হত্যার ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার ২

  |  ১৩:৩৫, মে ০১, ২০২০
www.adarshabarta.com

আদর্শবার্তা ডেস্ক :

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে এবাদুর রহমান নিহতের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। নিহতের স্ত্রী নাছিমা বেগম বাদি হয়ে বৃহস্পতিবার কানাইঘাট থানায় মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় আটজনের নাম উল্লেখসহ ৩/৪জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ।

কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুদ্দোহা পিপিএমের মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পূর্ব বিরোধের জের ধরে এক পক্ষের হামলায় এবাদুর রহমান আহত অবস্থায় মারা গেছেন। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত মৃত খলিলুর রহমানের পুত্র কামাল আহমদ (৪৫) ও মৃত তবারক আলী তবাইর পুত্র রহিম উদ্দিনকে (৫৫) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলার অন্যান্য আসামিদের গ্রেপ্তার করতে এলাকায় পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের পর পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, বুধবার রাতে উপজেলার ছত্রপুর গ্রামে পূর্ব বিরোধের জের ধরে এবাদুর রহমানের ভাতিজা শিবলুকে মারধর করে প্রতিপক্ষ কামাল গংরা। তখন উপস্থিত লোকজনরা বিষয়টি মিমাংসা করে দিলেও পরবর্তীতে কামাল আহমদ গংরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এবাদুর রহমানের বসত বাড়িতে গিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। প্রতিপক্ষের এলোপাতাড়ি হামলায় এবাদুর রহমান সহ পরিবারের ৫ জন আহত হন।

আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে এবাদুর রহমানের মাথায় গুরুতর রক্তাক্ত জখম থাকায় তাকে সিওমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন চিকিৎসকরা। পথিমধ্যে এবাদুর রহমান মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করতে এলাকায় অভিযান চালিয়ে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত কামাল আহমদ ও রহিম উদ্দিনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন কানাইঘাট সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল করিম ও থানার ওসি (তদন্ত) আনোয়ার জাহিদ। তারা এবাদুর রহমান হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু তদন্ত করে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে বলে নিহতের স্বজনদের আশ্বস্থ করেন। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, নিহত এবাদুর রহমান একজন দিনমজুর। তিনি এলাকায় নিরীহ হিসেবে চলাফেরা করতেন। তার ৪টি অবুঝ ছেলে-মেয়ে রয়েছে। যারা তাকে হত্যা করেছে তাদের চিহ্নিত করে কঠোর শাস্তির দাবী জানিয়েছেন তারা।